মঙ্গলবার, ১৫ এপ্রিল, ২০১৪

পহেলা বৈশাখের সূচনা এবং উদযাপন


 (এই লেখাটি 'মেঘফুল' ছোট কাগজের এপ্রিল ২০১৪ সংখ্যায় প্রকাশিত)
পহেলা বৈশাখ তথা বঙ্গাব্দের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট:
১৫৭৬ খৃষ্টাব্দে রাজমহলের যুদ্ধে বাংলার শাসক দাউদ খান কাররানির মৃত্যুর মাধ্যমে বাংলা সম্পূর্ণ রূপে সুবাহ হিসেবে মুঘল শাসনের অধীনস্থ হয়, দিল্লীর মসনদে তখন ক্ষমতায় সম্রাট আকবর (শাসনকাল ১৫৫৬ খৃষ্টাব্দ হতে ১৬০৫ খৃষ্টাব্দ)। সে সময় প্রায় সমগ্র ভারতবর্ষে কৃষি ও ভূমি কর বা খাজনা আদায় হতো ইসলামি হিজরী বর্ষপঞ্জি অনুসারে। বাংলাতেও তাই। অথচ কৃষিকাজ সম্পাদিত হয় সৌরবর্ষ তথা সৌরমাসের হিসেবে। কিন্তু হিজরী সন নির্ভরশীল হলো চাঁদের উপর, সঙ্গত কারণেই কর আদায় আর কৃষি ফলনের সময় সংগতিপূর্ণ হচ্ছিল না। চন্দ্রবর্ষ সম্পূর্ণ হয় ৩৫৪ দিনে আর সৌরবর্ষ ৩৬৫ দিনে। সে কারণে ৩১ চন্দ্র বছর হলো ৩০ সৌর বছরের সমান। আকবরের বিশিষ্ট মন্ত্রী এবং বিজ্ঞ সভাসদ আবুল ফজল একদিন সম্রাাটকে একান্তে এই বাস্তবতা বোঝালেন। সম্রাট আকবর বিষয়টি অনুধাবন করলেন এবং এই গরমিল থেকে সরে আসার জন্য প্রাচীন বর্ষপঞ্জি সংস্কারের উদ্যোগ গ্রহণ করলেন। সম্রাটের আদেশে নবরত্নসভার বিশিষ্ট একজন এবং তৎকালীন বিখ্যাত বিজ্ঞানী ও জ্যোতির্বিদ আমির ফতেহউল্লাহ সিরাজি চান্দ্রমাস নির্ভর হিজরী বর্ষপঞ্জি এবং সৌরমাস নির্ভর  হিন্দু বর্ষপঞ্জি গবেষণা করে একটি নতুন বর্ষপঞ্জি প্রস্তাব করেন। সে মতে সম্রাট ১৫৮৪ খৃষ্টাব্দের ১০ই মার্চ বা ১১ই মার্চ  (৯৯২ হিজরী সনে) একটি ফরমান জারি করেন এবং নতুন বর্ষপঞ্জি প্রতিষ্ঠা করেন, যার নাম দেয়া হয় তারিখ-ই-ইলাহী। তবে ঐ ফরমানে বলা হয় নতুন এই পদ্ধতি কার্যকর ধরা হবে পানি পথের দ্বিতীয় যুদ্ধে হিমুকে পরাজিত করে সম্রাট আকবরের সিংহাসনে আরোহণের ঐতিহাসিক দিনটি থেকে। দিনটি হলো ৫ই নভেম্বর, ১৫৫৬ খৃষ্টাব্দ   ( ১০ ই রবিউল আউয়াল ৯৬৩ হিজরী) ।

বৃহস্পতিবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৪

‘বসন্ত’-বাংলার কবি এবং কবিতা


বসন্ত নিয়ে কিছু কথা বলার প্রারম্ভে স্বভাবতই লক্ষ্য করলে দেখা যাবে বসন্তকে বিশেষায়িত করার অতি অভিলাষ ‌‌‌'ঋতুরাজ' জুড়ে দেয়া হয়, তারপর বন্দনা কীর্তন এগিয়ে যায়, এখানে আমার কিঞ্চিৎ আপত্তি, আমি বসন্তকে ঋতুরাজ বলতে রাজী নই। যুগ থেকে শাতব্দী পেরিয়ে পেছনের ইতিহাসে আমরা যত রাজাদের দেখি, শুনি, পড়ি তারা ফাগুনের রক্ত রাঙা সবুজ পত্র কাননের মাঝে ঝিরি ঝিরি বসন্ত বাতাসের হিমেল পরশের মত মাধুরীময় রূপে আমাদের কাছে ধরা পড়ে না, রাজা স্বভাবতই কাঠিন্যেরা আবরণ বরন করেন, তা না হলে রাজত্ব টিকিয়ে রাখা কঠিন, প্রজার কাছে কেবল দয়ালু সাধু হলেই হয় না রাজাকে হতে হয় কঠোর, সত্য নিষ্টার পরাকাষ্টা, একটু উল্টো ভাবলে সেতো আরও কঠিন, আমি উল্টো ভাবনায় নিষ্ঠুর অত্যাচারী রাজাগণের কথাই বলছি, সেও ইতিহাসে ভরপুর। প্রিয় মিষ্টি মধুর পাখির কলকাকলী উচ্চকিত বসন্ত কেনো পুরুষ হবে, কেনো রাজা হবে, সেতো রানী হতে পারে, সৌন্দর্যের নিগুঢ় আলোড়ন হতে পারে, আমি তাই বসন্তকে বলব 'ঋতু শ্রেষ্ঠ'।

বুধবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৪

যেদিন বাবা চলে গেলেন

তখন আমার সরকারী চাকুরীর প্রথম পোষ্টিং। অবস্থান হলো কক্সবাজার; সাবমেরিন কেবল ল্যান্ডিং ষ্টেশন (বর্তমানে বিএসসিসিএল)। সময়টা ২০০৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাস। প্রায়  এক বছর ধরে কক্সবাজারে আছি। এক নিঃসঙ্গ জীবন অথচ স্বেচ্ছায় বেছে নেয়া; অনেকটা অনুভূতির তাড়নায়। একাকী অবসরের কিছুটা কাটত চৌদ্দ ইঞ্চি টিভি দেখে, সন্ধ্যায় জিম কসরত করে  আর বাকীটা  সামহয়্যারইন.নেট এ ব্লগীং করে। যদিও ইন্টারনেটের জন্য  ল্যান্ড ফোনের ডায়ালাপের ধীর গতির উপরেই ছিল কেবল নির্ভরশীলতা। তবুও রোজ ধৈর্য্য ধরে পোষ্ট আপলোড করে ব্লগীং করেই চলেছিলাম। এখনও সামহয়্যারে আমার সেই সব পোষ্টগুলোর অধিকাংশই রয়েছে (আইডিটির নাম পথিক!!!!!!!)। রোজকার দিনপঞ্জি নিয়ে কোন ব্লগীং করলে তার ট্যাগে লিখে দিতাম ‘নির্বাসনের দিনকাল’। সেই নির্বাসনের দিনকালে ঝিলংজার নিদারুণ নির্জনতার উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়ে রওয়ানা হয়েছিলাম এক রাতে আর অন্য সকল যাত্রার মতই। বাস ঢাকা ছেড়েছিল ১০ই ফেব্রুয়ারী দিবাগত রাতে। ঢাকা পেরিয়ে কুমিল্লা যাবার আগেই হয়তো দিন পেরিয়ে ১১ই ফেব্রুয়ারিতে পড়েছিল। দীর্ঘ জার্নি। ঘুম আমার ভালোই হতো। মাঝে মাঝে ভাঙতোও। বাসা থেকে গভীর রাতেই এক ঘুম ভাঙানি  মোবাইল কলে জানালো আমাকে-আব্বু খুব অসুস্থ। ঠিক কি বলেছিলাম সে সব শব্দ আজ স্মৃতিতে নেই। তবে হাসপাতালে সকালে নেয়া হবে এতটুকু মনে আছে। সকালে ডরমেটরিতে ফ্রেস হয়ে অফিসেও চলে গেলাম। অফিসটা শ খানেক গজ দূরে পুকুরের অপারেই। মন উতলা হচ্ছিল, আব্বুকে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে সে খোঁজ পেলাম। ল্যাপটপ খুলে বসে বসে উচাটন মনে সামহয়্যারইন.নেট এ ঢুকে দু ছত্র লিখে ফেললাম উৎকণ্ঠার প্যাচাল-

শনিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৪

প্রাণের বইমেলা, সাহিত্য ও প্রকাশনা-আমি এবং আমার অতীত বর্তমান

//মামুন ম. আজিজ
তৃতীয় বিশ্বের একটি উন্নয়নশীল দেশ হিসেবেই এই মুহূর্তে বাংলাদেশকে বহিঃবিশ্ব এবং আপন পরিধির ভেতরেও চিহ্ণিত করা হয়, অর্থাৎ আমাদের দেশটির পেছনে হয়তো কোন কোন দেশ আছে তবে সামনেও আছে ভরি ভরি দেশ। এ কথাটুকু আমার এই লেখার জন্য খুব প্রয়োজনীয় না হলেও এ কথাই শুরুতে না বলে পারলাম না এই কারণে যে আমাদের সামনে যারা মানে যেসকল দেশ রয়েছে, যারা জ্ঞান বিজ্ঞান, উন্নয়ন এবং বৈভবে আমাদের থেকে অনেক এগিয়ে তারাও এই আধুনিক উচ্চ প্রযুক্তি নির্ভর বিশ্বেও কাগজে ছাপা অক্ষরে লেখা এবং অতপর বাঁধাই করা যে জ্ঞান, ইতিহাস, তথ্য এবং কলা ও সংস্কৃতির ধারণ, বাহন, সংরক্ষন এবং পাঠের উপযোগী একটি চর্চা রয়েছে যাকে এক কথায় প্রকাশনা শিল্প বলা যায় তা বিন্দু মাত্রও বিস্মৃত হয়নি এবং তার যথাযথ প্রকাশ, রক্ষণ এবং পাঠের পূর্ব ধারাবাহিকতাকে এই ডিজিটাল যুগেও এগিয়ে নিয়ে চলেছে। তারা উন্নত জাতি। আমাদের পাশের দেশ ভারতেও এই পুস্তক প্রকাশ এবং তা পাঠের রীতি এখনও মানুষ বিস্তৃত হয়নি। অথচ আমাদের দেশে এই পুস্তক প্রকাশ এবং পাঠ দুটোই রূপ বদলেছে এবং বদলানোটা খুব একটা ইতিবাচক যে নয় মোটেও তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না, ও সবাই জানে।